করুণা কীভাবে বিকশিত করবেন

আমরা সকলে কারুণিক হওয়ার সম্ভাব্য বস্তু সহ জন্মগ্রহণ করেছি, যার দ্বারা আমরা অপরের জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করি, তারা যেন দুঃখ এবং তার কারণগুলি থেকে মুক্ত হতে পারে। আমরা নিজের এবং অপরের জন্য অবিশ্বাসনীয় লাভ পৌঁছানোর ক্ষমতাকে বিকশিত করতে পারি।

করুণা বিকশিত করার সর্বোত্তম উপায় হল প্রথমে আমাদের বাস্তব জীবনে এবং অনলাইন বন্ধু, এবং সম্ভবতঃ কিছু পশু পর্যন্ত নিজের সীমা নির্ধারণ করতে হবে। ধীরে-ধীরে, আমরা আমাদের করুণাকে অপরের জন্য প্রসারিত করতে প্রশিক্ষিত হতে থাকবো: যাদের আমরা পছন্দ করি, অপরিচিত ব্যক্তি, এবং এমনকি তাদের জন্যও, যাদের আমরা একেবারেই পছন্দ করি না। এটা ততক্ষণ পর্যন্ত চালিয়ে যেতে হবে যতক্ষণ না সম্পূর্ণ বিশ্ব এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে- হ্যাঁ, এমনকি আরশোলাও।

করুণার মধ্যে আবেগপ্রবণ এবং যুক্তিসঙ্গত উভয় প্রকারের উপাদান আছে। আবেগপূর্ণভাবে, এই গ্রহের সমস্ত জীবনের পরস্পরের নির্ভরশীলতাকে আমাদের উপলব্ধি করতে হবে। বিশ্ব অর্থনীতি এবং সব জিনিস যা আমরা উপভোগ করি- খাদ্য, বস্ত্র, গ্যাজেট, গৃহ, যানবাহন ইত্যাদি-অপরের কঠোর পরিশ্রমের দ্বারা তৈরী হয়। অন্যদের ছাড়া, আমাদের কাছে রাস্তা, বিদ্যুৎ, জ্বালানী, জল অথবা খাদ্য থাকতো না। এটা একাই স্বাভাবিকভাবে আমাদের কৃতজ্ঞ বানায়, এটাই আমাদের সুখী মনের দিকে চালনা করে, যাকে আমরা ‘উষ্ণ-হৃদয়ী মৈত্রী’ বলে থাকি। আমরা যতবেশী কৃতজ্ঞতার অনুভূতির উপর অনুধাবন করবো, তত প্রবলভাবে আমরা অপরকে স্নেহ করবো, যেমন একজন মা খুব কষ্ট পায় যদি তার একমাত্র শিশুর সঙ্গে খারাপ কিছু ঘটে। আমরা অপরের দুর্ভাগ্যে দুঃখ অনুভব করি, কিন্তু আমরা তার প্রতি দয়া দেখাই না অথবা দুঃখিত হই না। আমরা সহানুভূতি ব্যক্ত করি, যেন তাদের সমস্যাগুলি আমাদের নিজের।

সকলের জন্য আমাদের করুণাকে সমানভাবে প্রসারিত করার যুক্তিসঙ্গত ভিত্তিটি হল খুবই সুস্পষ্ট, তাসত্ত্বেও এটা এমন একটা কিছু যে, অনেকে এটার উপর বিবেচনাই করে না: সুখী হতে ইচ্ছুক হওয়া সকলের ক্ষেত্রে সমান, এবং অসুখীতা আর দুঃখ থেকে মুক্তি পাওয়ার ক্ষেত্রেও সকলেই সমান। এই দুটি তথ্যই সত্য হয়ে যায়, নির্বিশেষে যদিও কেউ আমাদের কাছের হোক অথবা দূরের, এবং নির্বিশেষে তারা যা কিছুই করুক না কেন। এমনকি যদি কেউ অনেক বড় ক্ষতি করেও দেয়, তারা এটা করছে অজ্ঞানতা, ধন্দ এবং বিভ্রান্তির কারণে, আর করছে ভুল চিন্তা-ভাবনা ক’রে যে এটাতে তাদের বা সমাজের উপকার হবে। এটা এমন নয় যে তারা সহজাতরূপে খারাপ; এমনিও কেউই সহজাতরূপে “খারাপ” হয় না। অতএব, তাদের জন্য করুণা থাকা ন্যায্য এবং যথাযথ, কারণ আমরা যেমন দুঃখ ভোগ করতে চাই না, তেমন তারাও চায় না।

করুণা ধ্যান

করুণা বিকশিত করার প্রশিক্ষণ এটাকে ক্রমশঃ তীব্রতম করে তোলে। প্রথমে আমরা তাদের দুঃখের উপর ধ্যান কেন্দ্রিভূত করবো যাদের আমরা পছন্দ করি, তারপর তাদের উপর যাদের প্রতি আমরা নিরপেক্ষ, এবং তারপর যাদের আমরা পছন্দ করি না। সর্বশেষে, আমরা সকলের দুঃখের উপর, সর্বত্র, সমানভাবে কেন্দ্রিভূত করবো।

প্রত্যেক স্তরে আমরা তিন প্রকারের অনুভূতি উৎপন্ন করবো:

  • কি চমৎকারই না হতো যদি তারা দুঃখ এবং তার কারণগুলি থেকে মুক্ত হয়ে যেতো!
  • তারা মুক্ত হয়ে যাক; তারা যদি মুক্ত হয়ে যেতো!
  • আমি তাদের মুক্তির জন্য সহায়তা করতে সক্ষম হই!

এই ভাবে, করুণার মধ্যে অপরকে তাদের সমস্যাগুলি থেকে মুক্ত করার এবং দুঃখগুলি অতিক্রম করাতে সাহায্য করার সাগ্রহ ইচ্ছা অন্তর্নিহিত আছে। এটা নিশ্চিত যে বাস্তবসম্মত পদ্ধতিগুলি অনুসরণ করে সমস্যাগুলির সমাধান করা যায়, এটার অর্থ হল যে কোনো পরিস্থিতিই নিরাশাজনক নয়। বৌদ্ধ ধর্মে করুণা হল চিত্তের একটি সক্রিয় অবস্থা যা অপরের কল্যাণের উদ্দেশ্যে কাজ করার জন্য যেকোনো মুহুর্তে ঝাঁপিয়ে পড়া।


Top