শান্ত হওয়া

শ্বাস-প্রশ্বাসের উপর মনোনিবেশ করে এবং এর চক্রগুলি গণনা করাকালীন সময় আমরা নিজেকে শান্ত করি যাতে আমরা ইতিবাচক মনের অবস্থা তৈরী করতে পারি।

ব্যাখ্যা

পুনরাবৃত্তির মাধ্যমে ইতিবাচক অভ্যাস গড়ে তোলার উপায় হল ধ্যান, যেমন- একটা পুরনো পথকে দুর্বল ক’রে একটা নতুন স্নায়বিক পথ নির্মাণ করা। এটা করার জন্য সর্বপ্রথম আমাদের ধাবিত মনকে শান্ত করা দরকার, যাতে একটা নতুন আরও বেশি উপকারী বোধগম্যতা এবং মনোভাবের বিকাশ করতে উন্মুক্ত জায়গা তৈরী করা যায়। শান্ত করার ক্ষমতা নিজেই হল একটা উপকারী অভ্যাস, কিন্তু এটা একটা নিরপেক্ষ অবস্থা, যেটা একটা গঠনমূলক অথবা ধ্বংসাত্মক মনোভাব বিকাশ করার ভিত্তি হতে পারে। আমরা এই শান্ত অবস্থাকে মনের গঠনমূলক অবস্থায় বিকাশ করতে খালি জায়গারূপে ব্যবহার করতে চাই এবং তার জন্য এটা হল একটা অনিবার্য প্রস্তুতিমূলক পদক্ষেপ।

জীবনে ঘটিত কঠিন ঘটনার সাথে আরও ভালোভাবে মোকাবিলা করতে শান্তভাব ধারণ করাটা আমাদের সহায়তা করে। প্রায়শই যা কিছু আমাদেরকে তাদের সাথে সঠিকভাবে মোকাবিলা করতে বাধা দেয় সেটা হল যে আমাদের মন অস্পষ্ট; ক্লান্তি এবং চাপের কারণে মানসিক বিক্ষেপতায় পরিপূর্ণ। উদাহরণ স্বরূপ, যেমন সারাদিন দীর্ঘ সময় ধরে আমাদের একটা কঠিন কাজ ছিল, চলে যাওয়ার আগে আরও এক ঘন্টা কাজ করা বাকি ছিল এবং সেখানে এছাড়াও আরও কিছু কাজ করার ছিল। এই পরিস্থিতিতে শ্বাস-প্রশ্বাসের উপর মনোনিবেশ করলে সেটা আমাদের শান্ত হতে সহায়তা করে, যাতে আমরা মনের স্পষ্ট অবস্থার সাথে এই চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতিকে মোকাবিলা করতে পারি।

ধ্যান

  • আপনার কোলে হাত রেখে সোজা হয়ে বসুন, আপনার চোখ অর্ধেক খোলা থাকবে, মেঝের দিকে তাকাবেন এবং আপনার দাঁতগুলি শক্তভাবে লেগে থাকবে না।
  • আপনার শরীরের উত্তেজনা, বিশেষ করে আপনার কাঁধ, মুখ এবং কপাল শিথিল করুন। শরীরের উত্তেজনা ত্যাগ না করা পর্যন্ত আমরা আমাদের মনকে শান্ত করতে পারি না।
  • স্বাভাবিক ভাবে নাক দিয়ে নিঃশ্বাস নিন।
  • আপনি মনে-মনে গণনা করুন যে আপনার নাকের ছিদ্র দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস প্রবেশ করছে এবং বেরিয়ে আসছে, এই সংবেদনশীলতার দিকে মনোনিবেশ করে বার বার এমন ভাবে এগারোবার নিঃশ্বাস নিন।
  • শ্বাস-প্রশ্বাসের সংবেদন ও গণনা সম্পর্কে মনোযোগ রাখুন (মানসিক আঠা দিয়ে ধরে রাখুন)।
  • নিস্তেজতা বা মানসিক বিক্ষেপতার কারণে আপনি যখন মনোযোগ হারিয়ে ফেলেন সেটাকে সনাক্ত করার জন্য সতর্কতা বজায় রাখুন।
  • আপনি যখন সনাক্ত করে ফেলেন যে আপনি মনোযোগ হারিয়ে ফেলেছেন তখন শ্বাস-প্রশ্বাস এবং গণনার প্রতি আপনার মনোযোগটি আবার প্রয়োগ করুন।
  • আপনি যদি মানসিক বিক্ষেপতা সনাক্ত করেন তাহলে নম্রভাবে ভাবনাটি ত্যগ করে দিন। ঐ সময় ভাবুন যে আপনি শ্বাস-প্রশ্বাস ত্যাগ করার সাথে-সাথে এটি আপনার মনের বাইরে চলে যাচ্ছে। আর এইভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস এবং গণনার দিকে আপনার মনোযোগ ফিরিয়ে আনুন।
  • আপনার কাঁধ এবং মুখটি যদি আবার শক্ত হয়ে যায় তাহলে এগুলি আরও একবার শিথিল করুন।
  • সর্বশেষে, ধ্যানের বাইরে যাওয়ার সময় আবার শান্ত মনের সাথে শান্ত হয়ে যান।

সারাংশ

আমরা যখন ক্লান্ত হই এবং চাপে থাকি আর চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য আরও মনের প্রভাস্বরতা ও আবেগপ্রবণ ভারসাম্যতার প্রয়োজন বোধ করি, তখন আমাদের শান্ত হওয়া উচিত এবং আমাদের মানসিক ও আবেগপ্রবণ সমাহিত ভাব পুনরায় প্রাপ্ত করা উচিত। একটা কম্পিউটারের মতো, আমাদের মনকে পুনরায় চালু করতে হবে। এটা করার জন্য, আমাদের শ্বাস-প্রশ্বাসের চক্রকে গণনা করার সময় আমাদের শরীরকে শিথিল করতে হবে এবং শ্বাস-প্রশ্বাসের উপর মনোনিবেশ করতে হবে। বাড়িতে ধ্যানের ক্ষেত্রে এই পদ্ধতিটি অনুশীলন করলে, এটা একটা স্নায়বিক পথ ও অভ্যাস গড়ে তোলে, যাতে আমরা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে যখন প্রয়োজন বোধ করি তখন এই পদ্ধতিটি প্রয়োগ করার জন্য স্মরণ করতে পারি। এরফলে এটাকে প্রয়োগ করা এবং বজায় রাখা আরও সহজ হয়ে যায়।

Top